ধর্মীয় স‌ঠিক শিক্ষাই পা‌রে সাম্প্রদা‌য়িকতা বন্ধ কর‌তে

1
418

মানুষ সামাজিক জীব।প্রত্যক্ষ অথবা পরোক্ষভাবে প্রতিটি মানুষের সাহায্য সহযোগিতায় সমাজ যুগের পর যুগ টিকে আছে।সমাজে নানান ধর্মের,পেশার মানুষ বসবাস করে।যুগ যুগ ধরে এই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে সমাজ আধুনিকতার ছলে পরিবর্তন হয়ে আসলেও প‌রিবর্তন হয়নি ধর্মীয় সম্মান‌বোধ।এক ধর্ম অন্য ধ‌র্মকে কটুক্তি,‌হেয় করা অনবরত চল‌তেই আ‌ছে।উপমহা‌দে‌শ বিভক্ত হওয়ার আ‌গে ধর্মীয় অনুভূ‌তির অসম্মান কিংবা বিভক্ত হওয়ার প‌রে একের প্রতি অ‌ন্যের কটু‌ক্তি সমা‌নে সমান।যেমন হিন্দু‌ শাসন আম‌লে হিন্দু রাজা দ্বারা মুস‌লিমরা নির্যা‌তিত হ‌য়ে‌ছে।আবার পাকিস্তান আম‌লে হিন্দুরা নির্যা‌তত হ‌য়ে‌ছে।ই‌তিহাস খুঁজ‌লে দেখা যায় একের প্র‌তি অন্যের বৈষম্য যুগ যুগ ধ‌রে হ‌য়ে আস‌ছে।অথচ ধর্মীয় জ্ঞা‌নে কিংবা শা‌স্ত্রে এ বিষ‌য়ে কড়া নি‌র্দেশ আ‌ছে।‌কিন্তু ধর্মীয় স‌ঠিক শিক্ষার অভাব অথবা ধর্মীয় জ্ঞান থাকার প‌রেও স‌ঠিক প্র‌য়ো‌গের অভা‌বে সাম্প্রদা‌য়িকতা‌কে উস‌কে দি‌চ্ছে।একজন ধর্মীয় ব্য‌ক্তি অর্থাৎ না‌স্তিকবাদ ম‌তে সাম্প্রদা‌য়িক ব্য‌ক্তি কখনও অন্য ধ‌র্মের মানুষ‌কে গালমন্দ,হেয় প্র‌তিপন্ন কর‌তে পা‌রে না।একজন ধা‌র্মিক ব্য‌ক্তি বিশ্বাস ক‌রে সকল ধর্ম নিজস্ব অ‌ধিকার,‌চিন্তা চেতনার ধারক বহন ক‌রে।‌তি‌নি কখনও সাম্প্রদা‌য়িক নন।হ‌তেই পা‌রেন না।বরং যারা নি‌জে‌দের অসাম্প্রদা‌য়িক ব‌লে দা‌বি ক‌রেন তারাই সাম্প্রদা‌য়িকতা‌কে উস‌কে দেন।ধর্মীয় অনুভূ‌তি‌তে আঘাত হা‌নেন।আমরা সমা‌জে তিন শ্রেণীর মানুষ দেখ‌তে পাই।এক শ্রেণী ধর্মীয় জ্ঞানহীন মানুষ হোক সে মুস‌লিম,‌হিন্দু,‌খ্রীস্টান,‌বৌদ্ধ ইত্যা‌দি।আ‌রেক শ্রেণী ধর্মীয় জ্ঞান‌কে গ্রহ্য না ক‌রে বাকস্বাধীনতার ব‌লে কো‌নো ঘটনা‌কে বিচার বি‌শ্লেষণ না ক‌রেই ধর্মীয় অনুভূ‌তি‌কে আঘাত হা‌নে তা‌রা।‌তৃতীয় শ্রেণীর মানুষ যা‌দের ম‌ধ্যে য‌থেষ্ট ধর্মীয় জ্ঞান র‌য়ে‌ছে অথবা যতটুক থা‌কে তা দ্বারা স্ব ধর্মের পাশাপা‌শি অন্য ধ‌র্মের প্রতি সম্মান প্রদর্শ‌নে বদ্ধপ‌রিকর।প্রথম দুই শ্রেনীর মানুষ সমা‌জের জন্য ক্ষ‌তিকর।এরা সাম্প্রদা‌য়িকতা‌কে যে‌কো‌নো মূ‌ল্যে বা‌ড়ি‌য়ে দি‌বে।ত‌বে দ্বিতীয় শ্রেণী বে‌শি ভয়ংকার।কারন তারা নি‌জে‌দের অসাম্প্রদায়িক বল‌বে কিন্তু ধর্মীয় অনুভূ‌তি‌তে আঘাত দি‌তে পটুতা দেখা‌বে।এরা সমা‌জে বিশৃঙ্খলা সৃ‌ষ্টি করতে ‌বেশ পটু।তা‌দের চতুরতা বোঝার সাধ্য খুব কম সংখ্যক মানু‌ষেরই আ‌ছে।কারন তারা সমা‌জে বু‌দ্ধিজী‌বি হি‌সে‌বেও রুপ ধারণ কর‌বে।প্রথম শ্রেণীর ম‌ধ্যে আবার দুটা দল আ‌ছে যাদের একদল ম‌ন্দিরে হামলা কর‌লে আনন্দ কর‌বে,মস‌জি‌দে হামলা কর‌লে আ‌রেক দল আনন্দ কর‌বে।দ্বিতীয় শ্রেণী মানুষ এই সু‌যো‌গে সাম্প্রদা‌য়িকতা‌র মাথায় ঘি ঢে‌লে দি‌বে।এভা‌বে প্রথম দুই দল সমা‌জে বিশৃঙ্খলা সৃ‌ষ্টি কর‌বে।অথচ কো‌নো ধর্মই এই শিক্ষা দেয় না যে তোমরা মস‌জিদে হামলা ক‌রো,ম‌ন্দি‌রে,‌গির্জায় হামলা ক‌রো।সকল ধর্ম অন্য ধর্ম‌কে সম্মান করার শিক্ষা দেয়।আ‌মি একজন মুস‌লিম হি‌সে‌বে আদর্শ মুস‌লিম‌দের মতামত তু‌লে ধরার চেষ্টা ক‌রে‌ছি।প‌বিত্র কোরআ‌নে আল্লাহ ব‌লে‌ছেন-আল্লাহ নিষেধ করেন না ঐ লোকদের সঙ্গে সদাচার ও ইনসাফপূর্ণ ব্যবহার করতে যারা তোমাদের সঙ্গে ধর্মকেন্দ্রিক যুদ্ধ করে নি এবং তোমাদের আবাসভূমি হতে তোমাদের বের করে দেয় নি। নিশ্চয় আল্লাহ ইনসাফকারীদের পছন্দ করেন। {সূরা আল-মুমতাহিনা, আয়াত :৮}
‌তিঁ‌নি আরও ব‌লে‌ছেন-তারা আল্লাহ তা‘আলার বদলে যাদের ডাকে, তাদের তোমরা কখনো গালি দিয়ো না, নইলে তারাও শত্রুতার কারণে না জেনে আল্লাহ তা‘আলাকেও গালি দেবে, আমি প্রত্যেক জাতির কাছেই তাদের কার্যকলাপ সুশোভনীয় করে রেখেছি, অতঃপর সবাইকে একদিন তার মালিকের কাছে ফিরে যেতে হবে, তারপর তিনি তাদের বলে দেবেন, তারা দুনিয়ার জীবনে কে কী কাজ করে এসেছে’। {সূরা আল আন‘আম,আয়াত :১০৮}
এখা‌ন থে‌কে শিক্ষা পাই ইসলাম অন্য ধর্ম‌কে অসম্মান করার শিক্ষা দেয়‌নি।শুধু্ ইসলাম না, আ‌মি বিশ্বাস ক‌রি সকল ধর্মই অন্য ধর্ম‌কে অসম্মান করার শিক্ষা দেয় নাই।
একটা দে‌শে বসবাসরত সবাই দে‌শের নাগ‌রিক।নাগ‌রিক হি‌সে‌বে সক‌লের সমান সুবিধা ভোগ করার অ‌ধিকার আ‌ছে।সকল ধ‌র্মের মানুষ এ‌কে অপ‌রের সহায়ক।অন্য ধর্ম‌কে ছোট ক‌রে কখনই আনন্দ উপ‌ভোগ করা যায় না।বরং প্রী‌তি,ভা‌লোবাসা,এ‌কে অপরের প্রতি সম্মান প্রদর্শ‌নের মাধ্য‌মে সমাজ আনন্দময় হ‌য়ে উ‌ঠে।তাই সমা‌জে শা‌ন্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখ‌তে ধর্মীয় স‌ঠিক শিক্ষার ‌বিকল্প নাই।‌সকল ধ‌র্মের শিক্ষা নি‌শ্চিত করা অতীব জরুরী।তাহ‌লে এক একটা সমাজ হ‌য়ে উঠ‌বে কাননের ফুল।একটা কান‌নে যেমন হ‌রেক রক‌মের ফুল থাক‌লে দেখ‌তে যত সুন্দর লা‌গে,‌তেম‌নি একটা দেশ,সমা‌জে নানান ধ‌র্মের,পেশার মানুষ থাক‌লে দেশ,সমাজ আরও আকর্ষনীয় হ‌বে।কেননা আল্লাহ ব‌লে‌ছেন-আ‌মি যা জা‌নি,‌তোমরা তা জা‌নো না(সূরা বাকারাহ)
‌ল‌েখা:এ‌বি আ‌রিফ,সরকা‌রি বাঙলা ক‌লেজ,ঢাকা

Author: AB Arif

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here